1. multicare.net@gmail.com : আমাদের পিরোজপুর ২৪ :
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১২:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
নাজিরপুরে ইউপি মেম্বারের বিরুদ্ধে ২টি ব্রীজের লোহার মালামাল বিক্রির অভিযোগ ছাগলকাণ্ড : মতিউর রহমান হারাচ্ছেন সোনালী ব্যাংকের পরিচালকের পদ পিরোজপুরে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত কাউখালীতে আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের শ্রদ্ধা উজিরপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত গজারিয়ায় আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ বরগুনায় সেতু ভেঙে মাইক্রোবাস খালে: কনে পক্ষের ১০ জন নিহত গলাচিপায় দেখা মিলল রাসেলস ভাইপার, আতঙ্কে উপজেলাবাসী মুন্সীগঞ্জে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক দূর করতে মাঠে ‘স্মার্ট ব্রিগেড’ মুন্সীগঞ্জে সিরাজদিখানে বাস- সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে দুইজন নিহত

কাউখালী ইউএনও’র মাথায় ছাতা ধরলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন

  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০২৩
  • ২৪৯ বার পড়া হয়েছে

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহের নিগার সুলতানার মাথায় ছাতা ধরলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন শুকুর। এমনই একটি ছবি কাউখালী সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান তার সামাজিক যোগাযোগ মধ্য ফেইসবুক আইডি দিয়ে ওই ছবি পোষ্ট করলে কাউখালীতে ব্যাপক অলোড়ন সৃষ্ঠি হয়। ভাইরাল হয়ে যায় ওই ছবি। বুধবার দুপুরে কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহের নিগার সুলতানা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনের নির্মানাধীন রাস্তার কাজ দেখতে যান। এসময় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেন, সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান মাঝে ইউএনও’র মাথায় ছাতা ধরা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন শুকুর। ওই ছবি ফেসবুকে ভাইলাল হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ওই ছবি তার ফেইসবুক আইডি থেকে ডিলিট করেদেন। কিন্তু তার আগে সকলেই ওই আইডি থেকে ছাড়া ছবি স্কীনশর্টদিয়ে রেখে দিয়েছেন।এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা মোশারফ হোসেন শুকুরের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, ইউএনও ম্যাডামের ড্রাইভার আমার হাতে ছাতাটা দিয়ে বলেন, চাচা ধরেন। আমি তা ধরে রেখেছি। সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সাথে আমার দ্বন্দ্ব আছে তাই তিনি ওই ছবি তুলে ফেইসবুকে দিয়েছেন।এবিষয়ে চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ইউএনও মহোদয় রাস্তার কাজ দেখতে গিয়েছেন আমরাও তখন তার সাথে ছিলাম। সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আলী ভাই ছিলেন। সেই ছবি ফেসবুকে দিয়েছি। আমার সাথে মুক্তিযোদ্ধা শুকুর সাহেবের কোন দ্বন্দ্ব নেই।ওই ছবিতে থাকা সাবেক ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী হোসেন বলেন, ইউএনও সাহেব রাস্তা নির্মানের কাজ দেখতে গেলে আমরা তার সাথে ছিলাম। শুকুর ছাতা ধরা কিনা তাও আমি খেয়াল করিনি। আমি টাস মোবাইল চালাই না মেয়েরা ছবি দেখে আমার কাছে জানতে চায় ঘটনাটা কি? ওদের মাধ্যমে ছবি দেখে বিষয়টি জেনেছি। এ বিষয়ে কাউখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহের নিগার সুলতানা বলেন, ঘটনাটি অসচেতন ভাবে ঘটেছে। প্রচন্ড রোদের মধ্যে আমার ড্রাইভার ছাতা ধরা ছিল। কখন তা মুক্তিযোদ্ধার হাতে দিয়েছে তা আমি খেয়াল করতে পারিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: 𝐘𝐄𝐋𝐋𝐎𝐖 𝐇𝐎𝐒𝐓